মুক্তিযোদ্ধা বাবার চিকিৎসা সহায়তায় প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণে ফেসবুকে পোস্ট যুবকের

প্রকাশিত: ২:৫৪ অপরাহ্ণ, মে ১৩, ২০২০

মুক্তিযোদ্ধা বাবার চিকিৎসা সহায়তা পেতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে মানবিক আবেদন জানালেন সুনামগঞ্জের তাহিরপুরের এক যুবক।

মঙ্গলবার সন্ধা ৭টার দিকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে এ বিষয়ে একটি পোস্ট দিয়েছেন তিনি।

তাহিরপুরের ওই মুক্তিযোদ্ধা সন্তানের নাম মো. শাওন ইসলাম। তার বাবা মুক্তিযোদ্ধা সাদেক আলী ষ্ট্রোকে প্যারালাইজড হয়ে গত পাঁচ বছর ধরে নিজ বাড়িতে বিছানায় শয্যাশায়ী হয়ে পড়ে আছেন। নিজের বাবার হয়ে স্ট্যাটাসে জাতীর জনকের কন্যা মুক্তিযোদ্ধাগণের ভরসাস্থল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক ও ইউএনওর দৃষ্টি আকর্ষণ করে শাওন লেখেন, আমার নাম বীর মুক্তিযোদ্ধা সাদেক আলী। আমি গত পাঁচ বছর যাবত প্যারালাইসিস রোগে আক্রান্ত হয়ে শারীরিক শক্তি সামর্থ্য হারিয়ে নিজ বাড়িতে পড়ে আছি। টাকার অভাবে আমি সুচিকিৎসা করতে পারছি না। কিছুদিন আগে জানতে পারলাম বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী অসুস্থ বীর মুক্তিযোদ্ধাদের চিকিৎসাভাতা প্রদান করেছেন। কিন্তু দুঃখের বিষয়, আমি অসুস্থ বীর মুক্তিযোদ্ধা পাঁচ বছর যাবত বিছানায় পড়ে থাকলেও আমার নাম চিকিৎসা ভাতার তালিকাতে নাই। যারা চিকিৎসা ভাতা তালিকা করেছেন তারা আমার খোঁজখবর নেন নাই। কি কারণে চিকিৎসাভাতা তালিকাতে আমার নামটি তোলা হয়নি তা আমি জানি না। সুস্থ সবল ও স্বাবলম্বী মুক্তিযোদ্ধারা চিকিৎসা ভাতা পান। আমি অসুস্থ মুক্তিযোদ্ধা হয়েও কেন চিকিৎসাভাতা থেকে বঞ্চিত হলাম এটাই আমার প্রশ্ন। সরেজমিনে তদন্ত সাপেক্ষে আমাকে চিকিৎসা ভাতা প্রদানে আকুল আবেদন জানাচ্ছি।

জানা গেছে, সাত সদস্যের সংসার কোনোমতে চালাতেন মুক্তিযোদ্ধা সাদেক আলী। মাসিক মুক্তিযোদ্ধা ভাতার টাকা জমিয়ে ২ মেয়ের বিয়ের কাজ সম্পন্ন করেন। এরপর গত পাঁচ বছর আগে হঠাৎ করে ষ্ট্রোক করে প্যারালাইজড হয়ে শারীরিক সক্ষমতা হারিয়ে শয্যাশায়ী হন।

দুই ছেলে দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে সাদেক আলীর চিকিৎসা করাতে গিয়ে বর্তমানে প্রায় নি:স্ব হয়ে পড়েছেন। এ অবস্থায় বাবার ওষুধপত্র ও চিকিৎসাসেবা চালিয়ে যাওয়া ও পাশাপাশি ছোট বোনের লেখাপড়ার খরচ যোগাতে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন তারা।

মঙ্গলবার মুক্তিযোদ্ধার জ্যেষ্ঠ সন্তান শাওন ইসলাম যুগান্তরকে বলেন,সমাজসেবা অফিসারের গাফিলতি ও অবহেলার কারণে আমার অসুস্থ বাবা প্রধানমন্ত্রীর চিকিৎসা সহায়তা থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। আমি নিরুপায় হয়ে তার চিকিৎসা সহায়তা পেতে ফেসবুকের আশ্রয় নিয়েছি। পোস্টের মাধ্যমে জাতীর বীর সন্তান মুক্তিযোদ্ধাগণদের একমাত্র ভরসাস্থল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে মানবিক আবেদন জানিয়েছি।

এদিকে মঙ্গলবার রাতে অসুস্থ মুক্তিযোদ্ধা সাদেক আলীর পরিবারের সদস্যদের অভিযোগ প্রসঙ্গে জানতে তাহিরপুর উপজেলা সমাজসেবা অফিসার মাহবুবুর রহমানের সরকারি মোবাইল নম্বরে কল করলেও তিনি ফোন কল রিসিভ না করায় কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

প্রসঙ্গত, একাত্তরের রণাঙ্গণে সাদেক আলী ৫ নং সেক্টরের ট্যাকেরঘাট ৪নং সাব-সেক্টরের অধীনে পাক বাহিনী ও তাদের দোসরদের বিরুদ্ধে বীরত্বপূর্ণ ভুমিকা রাখেন। সাদেক আলীর মুক্তিযোদ্ধা সনদ নং ১৮১০০৭, মুক্তিবার্তা নং লাল বই ০৫০২০৮১১৮, গেজেট নং ৩১১২।




error: কপি রাইট আইনে সর্বস্বত সংক্ষিত
%d bloggers like this: