বাংলাদেশ, , সোমবার, ৪ মার্চ ২০২৪

রোহিঙ্গারা বাংলাদেশের জন্য অভিশাপ;আবারো প্রমাণিত

বাংলাদেশ পেপার ডেস্ক ।।  সংবাদটি প্রকাশিত হয়ঃ ২০২০-০৪-১৬ ২০:৪৯:৪৭  

 

সারা বিশ্বের ন্যায় করোনা কোভিড-১৯ এর ভয়াল থাবা বাংলাদেশেও পৌঁছে গেছে সারাদেশে এক লক ডাউন চলছে, আইইডিসিআর সর্বশেষ তথ্যমতে বাংলাদেশ এখন করোনায় আক্রান্ত
সর্বমোট ১২৩১ জন, মৃত্যু হয়েছে একজন চিকিৎসক সহ সর্বমোট ৫০ জন।

কোভিড-১৯ এর ভয়ে কাঁপছে দেশ।

এদিকে আবারো টেকনাফের বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর জাহাজ কাটা নামক সৈকত অনুপ্রবেশ চার শতাধিক রোহিঙ্গার
স্থানীয় ও বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমের মতে এই রোহিঙ্গা বহরে অনেকে করোনায় আক্রান্ত থাকতে পারে।

৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ সালে রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশের সময় আমার লিখা বিভিন্ন অনলাইন নিউজ পোর্টাল ও স্থানীয় পত্রিকায় প্রকাশ হয়েছিল মূল শিরোনাম ছিল

“বাংলাদেশের গলার কাঁটা রোহিঙ্গারা”

আমার লিখার কথামতো ২০১৯ /২০২০ সাল নাগাদ এসে রোহিঙ্গারা বাংলাদেশের গলা কাঁটা হয়ে দাঁড়ায়

বিভিন্ন এনজিও সংস্থা ও সংবাদ মধ্যমেরর সূত্রমতে বাংলাদেশে রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠীর প্রায় দশ থেকে বার লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে অবস্থান করছে
মানবিক কারনে কারনে এদেশে স্থান পাওয়া যে রোহিঙ্গারা মায়ানমারে ছিল অসহায়, প্রতিবাদহীন ও ভীতু, সেই রোহিঙ্গারা শরনার্থী শিবিরে মহাসমাবেশ করে, তারা বাংলাদেশ ছেড়ে যেতে নারাজ।

প্রশাসনিক নানা বিধি নিষেধের কারণে রোহিঙ্গা ক্যাম্পের অভ্যন্তরে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পক্ষে অনেক সময় সহজ পুলিশী পদক্ষেপ নেওয়া সম্ভব হয়ে উঠে না বলে আজ নিরস্ত্র রোহিঙ্গারা সশস্ত্র গ্রুপ সৃষ্টি করেছে, কিছুদিন আগে এ র‍্যাবের সাথে সাথে বন্ধুক যুদ্ধে ৭ জন রোহিঙ্গা ডাকাত নিহত হয়।
দিনের বেলা ক্যাম্পের আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক থাকলেও রাতের বেলা ক্যাম্পের নিয়ন্ত্রণ সশস্ত্র সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর হাতে।
এই রোহিঙ্গারা খুন, রাহাজানি, ডাকাতি, নারী ধর্ষণ, নারী ও শিশু সহ মানব পাচার, মাদক পাচারের মত অপরাধের সাথে জড়িত
তাদের হাতে খুন হয়েছে স্থানীয় হ্নীলা যুবলীগ নেতা ফারুক, তাদের দলাদলি ও অভ্যান্তরিন কোন্দলে খুন হয়েছে অর্ধশতাধিক।

টেকনাফ ও উখিয়ার শ্রম বাজার এখন রোহিঙ্গাদের দখলে। স্থানীয় জনগণ সংখ্যালঘুতে পরিণত হওয়ায় তারা রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের ভয়ে সবসময় ভীত সন্ত্রস্ত থাকে।
রোহিঙ্গাদের কারণে কক্সবাজার সহ সারাদেশে পরিবেশ আজ হুমকির মুখে।

এবার করোনার ভয়ে দেশ ভীত সন্ত্রস্ত
দেশের প্রায় ৩০ টির বেশী জেলা করোনা আক্রান্ত, জেলা প্রশাসকের বিচক্ষণতায় একজন আক্রান্ত হওয়ার পর আপাতত কক্সবাজারে কেউ আক্রান নন।

এই পরিস্থিতিতে আমাদের গলার কাঁটা হয়ে আর কোন রোহিঙ্গাদের স্থান দেওয়া উচিৎ হবে না, কক্সবাজারের সন্দেহজনক করোনা আক্রান্ত রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ আমরা মেনে নিতে পারছি না, বাঙ্গালী অনেক মানবতা দেখিয়েছি আর নয় কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মহোদয় ও সরকারের ঊর্ধ্বতন মহলের নিকট কক্সবাজার বাসীর দাবী একটি দ্রুত অনুপ্রবেশকারী দ্রুত রোহিঙ্গাদের পুশব্যাক করুন।

ইব্রাহীম আজাদ বাবু
যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক
কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগ।

সম্পাদক
কক্সনিউজ টোয়েন্টিফোর


পূর্ববর্তী - পরবর্তী সংবাদ
       
                                             
                           
ফেইসবুকে আমরা