বাংলাদেশ, , শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

১৬০ টি চুরি কৃত মোবাইল উদ্ধার

বাংলাদেশ পেপার ডেস্ক ।।  সংবাদটি প্রকাশিত হয়ঃ ২০১৯-১০-১৯ ১৮:৩০:২১  

 

অপরাধের প্রক্রিয়া ঃ
পেশায় তারা মোবাইল দোকানদার হলেও চট্টগ্রাম মহানগরীর রিয়াজউদ্দিন বাজারের মার্কেটে
অন্যান্য মোবাইল ক্রয়-বিক্রয়ের দোকানদারের তাহারাও দোকানে ব্যবসা পরিচালনা করে। বাজারের অন্যান্য
ব্যবসায়ীরা বৈধভাবে মোবাইল ক্রয়-বিক্রয় করিলেও আসামী ০১) দোস্ত মোহাম্মদ মানিক(৫৪) ০২) মোঃ
খলিলুর রহমান (৩১), ও পলাতক আসামী মোঃ খোরশেদ আলম (৩৫) গণ মোবাইলের দোকান দিয়ে সকল
ব্যবসায়ীর মত মোবাইল ব্যবসা করে না। তারা অধিক লাভের আশায় চট্টগ্রাম মহানগরীর বিভিন্ন চুরি,
ছিনতাই হওয়া মোবাইল ফোন সমূহ চোর, ছিনতাইকারীদের নিকট হইতে নামমাত্র ক্রয় করে। চোর
ছিনতাইকারীর নিকট হইতে নামমাত্র মূল্যে ক্রয় করা মোবাইল সমূহ অন্যান্য ব্যবসায়ীর মত মোবাইল ক্রয়-
বিক্রয় করে অধিক মুনাফা অর্জন করে। চোর ছিনতাইকারীরা মোবাইল পাওয়ার পর রিয়াজউদ্দিন বাজারে
বিক্রয় করতে গেলে আসামীদের নির্দিষ্ট দোকানে বিক্রয় করে। চোর ছিনতাইকারীরা অন্য কোথাও
মোবাইল বিক্রয় করতে পারে না। আসামী দোস্ত মোহাম্মদ মানিক (৫৪) ও পলাতক আসামী মোঃ খোরশেদ
আলম (৩৫) আপন মামা-ভাগিনা। তারা উভয়ে আলোচিত রিয়াজউদ্দিন বাজারের চোরাই মোবাইল ক্রয়কারী
র‌্যাবের বন্দুকযুদ্ধে নিহত জাহিদুল ইসলাম আলো’র অন্যতম সহযোগী। আলোর মৃত্যুর পর এই চোরাই
মোবাইল সিন্ডিকেট তারা আপন মামা-ভাগিনা নিয়ন্ত্রন করে।
ঘটনার বিবরণ ঃ
গত ইং ২৯/০৯/১৯ তারিখ সন্ধ্যার সময় কোতোয়ালী থানাধীন লাভলেইন মোড় হইতে ছিনতাইকারী
মোঃ নজরুল ইসলাম (৫০) ও তার সহযোগী ৪ জনকে গ্রেফতার করা হয়। নজরুল ইসলামের স্বীকারোক্তি
মোতাবেক তাহার নিকট হইতে ৩টি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়। আসামী স্বীকার করে যে, তাহার
গ্রুপ চট্টগ্রাম শতাধিক ছিনতাই করিয়াছে। ছিনতাইকৃত মোবাইল ফোন সমূহ রিয়াজউদ্দিন
বাজারের উল্লেখিত আসামীদের দোকানে নিয়মিত বিক্রয় করিত। আসামী নজরুল ইসলাম সহ
৩০/০৯/১৯ইং তারিখ ১৪:৩০ ঘটিকার সময় অভিযান পরিচালনা করিয়া ০১) দোস্ত মোহাম্মদ মানিক(৫৪) এর
মালিকানাধীন আলিফ ইলেকট্রনিক্স হইতে ৭৩টি চোরাই মোবাইল ফোন, ০২) খলিলুর রহমান (৩১) এর
মালিকানাধীন এন কে মোবাইল নামক দোকান হইতে ৬৫টি চোরাই মোবাইল ফোন এবং পলাতক
আসামী ০৩) মোঃ খোরশেদ আলম (৩৫) এর মাদার টাচ নামক মোবাইল দোকান হইতে ২২টি চোরাই
মোবাইল ফোন উদ্ধারপূর্বক জব্দ করা হয়। পলাতক আসামী খোরশেদ আলম (৩৫) এর দোকানের কর্মচারী ০৩)
সাহেদুল ইসলাম (২৪) কে আটক করা হয়। ধৃত ছিনতাইকারী নজরুল ইসলাম সহ উপস্থিত সাক্ষীদের
সম্মুখে উল্লেখিত দোকানে আসামীদের নিকট ছিনতাইকৃত মোবাইল সমূহ একেক সময় একেক
দোকানে বিক্রয় করিত মর্মে স্বীকার করে। উল্লেখিত মোবাইল সমূহ উদ্ধারের সময় আসামীদেরকে বৈধ
কাগজপত্র প্রদর্শন করিতে বলিলেও তাহারা বৈধ কোন কাগজপত্র উপস্থাপন করিতে পারে নাই। আসামীরা
বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন চোর, ছিনতাইকারীর নিকট হইতে চোরাই ও ছিনতাইকৃত মোবাইল ফোন
সমূহ অল্প দামে ক্রয় করিয়া সাধারণ লোকের নিকট অধিক দামে বিক্রয় করিত। ধৃত আসামী খলিলুর রহমান
(৩১) কে জিজ্ঞাসাবাদে সে জানায় যে, তাহার দোকানে রক্ষিত মোবাইল ফোন সমূহের মধ্যে কিছু
মোবাইল আসামী ০৪) মোঃ সোহেল রানা (৩০) এর নিকট হইতে ক্রয় করিয়াছিল। আসামী ০৪) মোঃ
সোহেল রানা (৩০) ধৃত করার পর অপর আসামী খলিলুর রহমানের নিকট বিক্রয়কৃত মোবাইলের কোন
কাগজপত্র উপস্থাপন করিতে পারে নাই।
উদ্ধারকৃত আলামত ঃ- বিভিন্ন মডেলের ১৬০ টি মোবাইল সেট।
গ্রেফতারকৃত আসামীর নাম ও ঠিকানা ঃ-
০১) দোস্ত মোহাম্মদ মানিক(৫৪) পিতা-মৃত দেলা মিয়া মাতা-হামিদা বেগম সাং- নদীমপুর, আবু
তালেবের বাড়ী থানা- রাউজান জেলা- চট্টগ্রাম বর্তমানে- নন্দনকানন ০১ নং গলি, রানী পুকুর পাড় থানা-
কোতোয়ালী জেলা-চট্টগ্রাম কর্মক্ষেত্রের ঠিকানা- আলিফ ইলেক্ট্রনিক্স, সিডিএ হকার মার্কেট নিচ
তলা, রিয়াজউদ্দিন বাজার থানা- কোতোয়ালী জেলা-চট্টগ্রাম ০২) মোঃ খলিলুর রহমান (৩১) পিতা- কবির
আহম্মদ মাতা- রেজিয়া বেগম সাং- ছদাহা, কবির আহাম্মদের বাড়ী থানা-সাতকানিয়া জেলা-চট্টগ্রাম
বর্তমানে- মালিক, রিয়াজউদ্দিন বাজার ইসলাম মার্কেট, এন কে মোবাইল নামক মোবাইলের দোকান
থানা-কোতোয়ালী জেলা-চট্টগ্রাম ০৩) সাহেদুল ইসলাম (২৪) পিতা- হারুনুর রশিদ মাতা- সাজিনা
আক্তার সাং- আমিরাবাদ বলির বাড়ী থানা- লোহাগাড়া জেলা- চট্টগ্রাম বর্তমানে- কর্মচারী, ১০৪/৫
মাদার টাচ, রিয়াজউদ্দিন বাজার মক্কা টাওয়ার থানা- কোতোয়ালী জেলা-চট্টগ্রাম ০৪) মোঃ সোহেল রানা
(৩০), পিতা-মোঃ জামাল উদ্দিন, মাতা-মমতাজ বেগম, সাং-ফজরকান্দি, হামি আলী প্রধানের বাড়গী,
থানা-হোমনা, জেলা-কুমিল্লা বর্তমানে-এসডিসি টাওয়ার, মিরিন্ডা লেইন, পাথরগাটা, থানা-
কোতোয়ালী, জেলা-চট্টগ্রাম।

পলাতক আসামীর নাম ও ঠিকানা ঃ-
১। মোঃ খোরশেদ আলম (৩৫) পিতা-হাজী সিরাজুল ইসলাম মাতা- লুৎফুন নাহার সাং- সড়ক ভাটা রুহুল
আমিন সওদাগরের বাড়ী থানা- রাঙ্গুনিয়া জেলা-চট্টগ্রাম, মালিক-১০৪/৫ মাদার টাচ, রিয়াজউদ্দিন
বাজার মক্কা টাওয়ার থানা- কোতোয়ালী জেলা-চট্টগ্রাম।
অভিযান পরিচালনাকারী টিমের নাম ঃ
১। জনাব মোহাম্মদ মহসীন, পিপিএম, অফিসার ইনচার্জ, কোতোয়ালী থানা, সিএমপি, চট্টগ্রাম,
পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত)/মোঃ কামরুজ্জামান, এসআই/কে এম তারিকুজ্জামান, এসআই/মোঃ আজহারুল
ইসলাম, এসআই/এইচ এম এরশাদ উল্লাহ, এএসআই/অনুপ কুমার বিশ্বাস, এএসআই/রণেশ বড়–য়া,
এএসআই/সাইফুল আলম, এএসআই/রুহুল আমিন, এএসআই/মোঃ আজিজুল ইসলামসহ অন্যান্য
অফিসার ও ফোর্স।


পূর্ববর্তী - পরবর্তী সংবাদ
       
                                             
                           
ফেইসবুকে আমরা