বাংলাদেশ, , শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

লাখ টাকার অভিযান, সরকারি কোষাগারে জমা ২০ হাজার

বাংলাদেশ পেপার ডেস্ক ।।  সংবাদটি প্রকাশিত হয়ঃ ২০২২-০৯-০৮ ২০:২৪:২৭  

ঘুষ গ্রহনের ৪৮ ঘন্টা পর ঘুষের একলাখ টাকা ফেরত দিলেন ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর কক্সবাজারের আঞ্চলিক কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মো. ইমরান হোসাইন। বৃহস্পতিবার (৮ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় কক্সবাজার জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের একটি সালিশি বৈঠক শেষে অভিযোগকারীকে ওই টাকা ফেরত দিয়েছেন তিনি।

এ ঘটনায় কনজুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) এর কক্সবাজারের সদস্য পরিচয়ধারী রিদুয়ানকে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছে জেলা প্রশাসন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জেলা প্রশাসনের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট (এডিএম) আবু সুফিয়ান।

কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের দেয়া তথ্যমতে, গত ৬ সেপ্টেম্বর রামুতে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর। সেদিন পরিমাপে তেল কম দেয়ার অভিযোগে রামু চৌমুহনীর নাহার ফিলিং ষ্টেশনকে প্রথমে ৪ লাখ টাকা জরিমানা করে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর কক্সবাজারের সহকারী পরিচালক মো. ইমরান হোসাইন। পরে ফিলিং ষ্টেশন কর্তৃপক্ষ এত টাকা জরিমানা দিতে অপরাগকতা প্রকাশ করলে সীলগালা করে দেয়া হয় প্রতিষ্ঠানটি। কিন্তু সীলগালা করার পরে ক্যাব ককক্সবাজারের সদস্য পরিচায়ধারী রিদুয়ান ফের ওই ফিলিং ষ্টেশনে গিয়ে কর্তৃপক্ষের কাছে ঘুষ দাবী করে। পরে রিদুয়ানের সাথে ঘুষের বিনিময়ে রফাদফা করে নাহার ফিলিং ষ্টেশন কর্তৃপক্ষ। এরপর সেই সন্ধ্যায় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর সহকারী পরিচালক মো. ইমরান হোসাইন আবারো নাহার ফিলিং ষ্টেশনে যান। আগের জরিমানার স্থলে নতুন ২০ হাজার টাকা জরিমানা স্লিপ দিয়ে ১ লাখ ২০ হাজার টাকা গ্রহন করে ষ্টেশনের সীলগালা তুলে নেয়।

আরো জানানো হয়, এ বিষয়টি ফিলিং ষ্টেশন কর্মকর্তারা ষ্টেশনটির মালিক আমেরিকা প্রবাসী এজাজুল ওমর চৌধুরী প্রকাশ বাট্টু মিয়াকে জানান। তার পরামর্শ মতে নাহার ফিলিং ষ্টেশন ম্যানেজার আবদুল্লাহ কক্সবাজার জেলা প্রশাসকের কাছে লিখিত অভিযোগ দেন। অভিযোগ পেয়ে উভয় পক্ষকে নিয়ে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় একটি সালিশী বৈঠক হয়। বৈঠক শেষে ঘুষের ১ লাখ টাকা ফেরত দিয়েছেন ইমরান হোসাইন।

বৈঠকে উপস্থিত কক্সবাজার প্রেসক্লাব সভাপতি আবু তাহের চৌধুরী বলেন, বৈঠকে কক্সবাজারের এডিএম আবু সুফিয়ান, তিনজন নির্বাহি ম্যাজিষ্ট্রেট, অভিযুক্ত ইমরান হোসাইন ও তার সহযোগী রিদুয়ান এবং অভিযোগকারীরা উপস্থিত ছিলেন। সাক্ষ্য প্রমানে ঘুষ নেয়ার বিষয়টি প্রমানিত হয়েছে। প্রথমদিকে ঘুষ নেয়ার বিষয়টি অস্বীকার করলেও এক পর্যায়ে ক্যাবের রিদুয়ান ঘুষ নেওয়ার কথাটি স্বীকার করে বসেন।

রিদুয়ানের বরাত দিয়ে প্রেসক্লাব সভাপতি আরো বলেন, ঘুষের ১০ হাজার টাকা রিদুয়ান এবং বাকি ৯০ হাজার ইমরান হোসাইন নিয়েছেন।

তিনি আরো বলেন, বৈঠক থেকে রিদুয়ানকে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছে প্রশাসন। আর বৈঠক শেষে ইমরান হোসাইন ঘুষের একলাখ টাকা ফেরত দিয়েছেন।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট (এডিএম) আবু সুফিয়ান বলেন, রাষ্ট্রযন্ত্রকে ব্যবহার করে ঘুষ আদায় করা চরম অপরাধ। এ জন্য ক্যাব সদস্য রিদুয়ানকে পুলিশের হাতে তুলে দেয়া হয়েছে। তার বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা করা হচ্ছে। এবং ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের কক্সবাজারের সহকারী পরিচালক মো. ইমরান হোসাইনের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নিতে অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের কাছে সুপারিশ করা হয়েছে।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারি পরিচালক মো. ইমরান হোসেনের মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন করা হয়। মোবাইলে রিং হলেও ফোন রিসিভ না করে কেটে দেয়ায় বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।


পূর্ববর্তী - পরবর্তী সংবাদ
       
                                             
                           
ফেইসবুকে আমরা