বাংলাদেশ, , শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

হুন্ডি ইয়াবায় কোটিপতি বেলাল!

বাংলাদেশ পেপার ডেস্ক ।।  সংবাদটি প্রকাশিত হয়ঃ ২০২২-০৮-১৭ ১৪:৪৩:০৪  

অন্যের ফার্মেসিতে ১৯ বছর চাকুরী করতেন বেলাল। পিতা এখনো রিক্সা চালিয়ে সংসার চালান। সেই রিক্সা চালক পিতার ছেলে বেলাল এখন কোটিপতির খাতায় নাম লিখিয়েছেন। এখন তিনি নিজেই একটি ফার্মেসির স্বত্বাধিকারী। ব্যবহার করছেন পাঁচ লক্ষাধিক টাকা মূল্যের মোটরসাইকেল। নিয়েছেন বিকাশের এজেন্টও।

স্থানীয়রা বলছেন, ইয়াবা আর হুন্ডি ব্যবসায় বদলে গেছে বেলালের জীবন।

চোখের পলকে কোটিপতি হওয়া যুবক বেলাল উদ্দিন (৩০) রামু উপজেলার খুনিয়াপালং ইউনিয়নের দক্ষিণ ধেঁছুয়াপালং হীরার দ্বীপ এলাকার বাসিন্দা রিক্সা চালক মনিয়ার ছেলে।

স্থানীয়দের দেয়া তথ্য মতে, বেলাল ২ বছর আগেও উখিয়ার হলদিয়া পালং ইউনিয়নের মরিচ্যা বাজারে লাতু সরকারের ফার্মেসি ও বিকাশের দোকানে ৩/৪ হাজার টাকা বেতনের চাকুরী করতেন। তার পিতা মনিয়া রিক্সা চালিয়ে কোন রকম সংসার চালাচ্ছে। অথচ হঠাৎ করেই বেলালের হাতে চলে আসে জাদুর কাটি ইয়াবা আর হুন্ডি ব্যবসা। লাতুর ফার্মেসিতে চাকুরি করা অবস্থায় জড়িয়ে পড়েন নিষিদ্ধ ইয়াবা ব্যবসায়।

 

তথ্য মতে, ইয়াবা ব্যবসায়ীদের অনেকে বিকাশের লেনদেন করতে লাতুর দোকানে যেত। মূলত বিকাশের লেনদেন করতে গিয়েই ইয়াবা ব্যবসায় জড়িয়ে পড়েন বেলাল। তাকে আর পেছনে ফিরতে হয়নি। শুরু হয় জীবনের গতি বদলানোর গল্পটা। ইয়াবা ব্যবসায় জড়িয়ে কোটিপতি হওয়া বেলাল বর্তমানে মরিচ্যা বাজার উত্তর স্টেশনে ইকবাল টাউরে “বেলাল মেডিকো” নামের ফার্মেসীর স্বত্বাধিকারী। যেখানে ২০/২৫ লাখ টাকার ঔষুধ রয়েছে। নিজের ব্যবহারের জন্য ৫ লাখ টাকা দামের ‘ভার্সন টু’ মডেলের মোটর সাইকেল কিনেছেন। লেনদেনের জন্য বিকাশের এজেন্ট নিয়েছেন। আর রয়েছে হুন্ডি ব্যবসাও।

স্থানীয়দের দেয়া তথ্য মতে, ইয়াবা ব্যবসায়ী মরিচ্যা চেকপোস্ট এলাকার সাইফুল প্রকাশ ইয়াবা সাইফুল, খুনিয়াপালং এলাকার সাবেক ইউপি সদস্য আবু তাহের টুনু ইয়াবার টাকা লেনদেন করেন বেলাল। টিটু নামে অপর এক মাদককারবারীর পুরো ব্যবসা দেখভাল করেন তিনি। সম্প্রতি অস্ত্রসহ র‍্যাব-১৫ এর হাতে আটক হয়ে কারাগারে আছেন টিটু। তাজ উদ্দিন নামে অপর এক ইয়াবা ব্যবসায়ীর টাকাও গচ্ছিত রাখেন বেলাল। সম্প্রতি ৬০ হাজার পিস ইয়াবাসহ উখিয়া থানা পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়েছিলেন তাজ উদ্দিন। প্রায় ৫০ লাখ টাকা ব্যয় করে জামিনে আসেন তাজ উদ্দিন। এ তথ্যও জনিয়েছেন স্থানীয়রা।

ছবি-ইয়াবাসহ আটক তাজ উদ্দিনের সাথে বেলাল

এছাড়া সৌদিয়া, মালয়েশিয়া, কাতার, দুবাই থেকে হুন্ডি লেদেন করেন। নিজে এখন বিলাসি জীবন যাপন করলেও বাবা সে আগের মতোই রিক্সা চালিয়ে সংসার চালাচ্ছেন।

বাবা রিক্সা চালিয়ে সংসার চালাচ্ছেন এটি স্বীকার করে বেলাল বলেন, আগে রিক্সা চালালেও এখন পিতাকে অটোরিক্সা ক্রয় করে দিয়েছেন।

মরিচ্যা বাজারে সরকার ফার্মেসিতে চাকুরী করার কথা স্বীকার করে বলেন, ১৯ বছর সরকার ফর্মেসিতে চাকুরী করেছেন তিনি।

টুনু মেম্বার, সাইফুল এবং টিটু (কারাগারে) বিভিন্ন সময় দোকানে আসার কথা স্বীকার করলেও তাদের সাথে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক নেই বলে দাবি করেছেন বেলাল। এলাকার ছেলে হিসেবে তাজ উদ্দিনের সাথে সম্পর্ক রয়েছে বলে জানান তিনি।

ইয়াবা ব্যবসার সাথে জড়িত নেই দাবি করে তিনি বলেন, বর্তমানে বিভিন্ন এনজিও সংস্থা থেকে ঋণ নিয়ে ব্যবসা শুরু করেছি। তবে এক সময় হুন্ডির ব্যবসার সাথে জড়িত থাকলেও এখন নেই বলেও দাবি করেন বেলাল।

এদিকে বেলালের সাথে প্রতিবেদকের কথা বলার মাত্র আধা ঘন্টা পরে মিজান নামে এক ব্যক্তি প্রতিবেদককে ফোন করে বেলাল খুবই ভাল ছেলে বলে দাবি করেন।

তিনি বলেন, বেলাল ইয়াবা ব্যবসার সাথে জড়িত নয়। তবে এক সময় হুন্ডি ব্যবসা করতেন। এক পর্যায়ে সংবাদ প্রকাশ না করার অনুরোধ জানিয়ে প্রতিবেদকের সাথে দেখা করার কথা বলেন।

উখিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ মোঃ আলী বলেন, ইয়াবা ব্যবসায়ীসহ সব ধরনের অপরাধীদের ছাড় দেয়া হবে না। তথ্য পেলেই তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।


পূর্ববর্তী - পরবর্তী সংবাদ
       
                                             
                           
ফেইসবুকে আমরা