ফেসবুকে লাইভে কলেজছাত্রের আত্মহত্যার চেষ্টা

প্রকাশিত: ১১:০১ অপরাহ্ণ, জুলাই ২, ২০২১

ভৈরবে ফেসবুক লাইভে রাহিম (১৮) নামের এক কলেজছাত্র আত্মহত্যার চেষ্টা করেছেন। শুক্রবার দুপুর পৌনে একটার দিকে উপজেলার শিমুলকান্দি কলেজ এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। রাহিম শিমুলকান্দি ইউনিয়নের চাঁনপুর গ্রামের কৃষক বুলবুল মিয়ার ছেলে।

বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে।

ভিডিওতে দেখা যায়, ফেসবুক লাইভের শেষ দিকে রাহিম বিষপান করেন। এ সময় তিনি বলেন, জানি না বিষপানের পর আমি বাঁচব কিনা। যদি কেউ আমার লাইভটি দেখে থাকেন, তাহলে হয়তো আমাকে বাঁচাতে আসবেন। আমাকে বাঁচাতে ঘটনাস্থলে আসতে ৩০-৪০ মিনিট লাগবে। কিন্তু আমি ১০ মিনিটের মধ্য মরে যাব।

ফেসবুক লাইভ দেখার পর শত শত মানুষ ঘটনাস্থলে পৌঁছে মুমূর্ষু রাহিমকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। কর্তব্যরত ডাক্তাররা তার পাকস্থলী ওয়াশ করে বাজিতপুর জহিরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজে উন্নত চিকিৎসার জন্য পাঠান। রাত আটটায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত রাহিম বেঁচে আছে বলে তার পারিবারিক সূত্র জানিয়েছে।

ফেসবুক লাইভে এসে রাহিম বলেন, আজ আমি পারিবারিক কারণে বিষপান করব। আমি জানি আত্মহত্যা মহাপাপ, মরলে দোজখে যাব। আল্লাহ আমাকে মাফ কর।

তিনি আরও বলতে থাকেন, আমি কথার বলার পর কিছুক্ষণের মধ্যই বিষপান করব। জানি না বিষের কেমন স্বাদ। পরিবারের যন্ত্রণা আর সহ্য করতে পারছিনা। এসব বলার পর রেডকিলারের প্যাকেট ছিড়ে মুখে দেন রাহিম। এরপর লাইভ থেকে তিনি হারিয়ে যান। তার লাইভটি সঙ্গে সঙ্গে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়।

ঘটনার বিষয়ে জানতে তার প্রতিবেশী রাকিবের সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে শত শত মানুষ পৌঁছায়। তার পরিবারের লোকজন ছুটে আসে। তাকে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়। তবে ঠিক কী কারণে রাহিম আত্মহত্যার চেষ্টা করেছে তিনি সেটা জানাতে পারেননি।

হাসপাতালের ডাক্তার তানজিনা বেগম জানান, তার পাকস্থলী ভাল করে ওয়াশ করা হয়েছে। তবে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে বাজিতপুর জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজে স্থানান্তর করা হয়েছে। ছেলেটি ইঁদুর মারা রেডকিলার খেয়েছে। হয়তো বেঁচে যাবে।