হেলিকপ্টার থেকে নেমেই লাঠি হাতে মাওলানা মামুনুল

প্রকাশিত: ১:১০ অপরাহ্ণ, মার্চ ১৬, ২০২১

সুনামগঞ্জের দিরাইয়ে হেফাজত ইসলামের সম্মেলনে গিয়ে লাঠি হাতে স্বেচ্ছাসেবকের দায়িত্ব পালন করলেন হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হক। দিরাইয়ের মজলিসপুর গ্রামের একটি মাঠে হেলিকপ্টার থেকে নামার পর সেলফি শিকারীদের তাড়িয়ে দিয়ে হেফাজতের আমির বাবুনগরীকে হেলিকপ্টার থেকে নামানোর সবিধার জন্য লাঠি হাতে দেখা যায় তাকে।

স্থানীয় সূত্রে এমন তথ্য জানা গেছে। শানে রিসালাত সম্মেলনে যোগ দিতে সোমবার সকালে সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলায় যান হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় নেতারা।

পরে পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হলে হেফাজত আমিরকে কোলে করে হেলিকপ্টার থেকে নামান স্বেচ্ছাসেবকরা। পরে তাকে হুইলচেয়ারে করে দিরাই হাফেজিয়া হোসাইনিয়া মাদ্রাসায় নিয়ে যান মাওলানা মামুনুল হক।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ভিড়ের কারণে বাবুনগরীকে হেলিকপ্টার থেকে কোনোভাবেই নামানো যাচ্ছিল না। পরে হেফাজত আমিরের নিরাপত্তার জন্য মামুনুল হক নিজেই স্বেচ্ছাসেবকের ভূমিকা পালন করেন।

আয়োজকদের একজন জানান, হেলিকপ্টার ল্যান্ড করার পর এর পাখাগুলো ঘুরছিল। চারপাশে ছিল প্রচণ্ড ভিড়। এরমধ্যে অনেকেই আবার সেলফি বা ছবি তোলার চেষ্টা করেন। তাই কেউ যাতে হেলিকপ্টারের পাকায় আঘাত না পান সেজন্য তাদের সরিয়ে দিতে লাঠি হাতে তিনি স্বেচ্ছাসেবকের দায়িত্ব গ্রহণ করেন।

তবে ঘটনাস্থলে থাকা আরেক ব্যক্তি দাবি করেন, হেলিকপ্টারটি আসার সঙ্গে সঙ্গে সেখানে প্রচণ্ড ভিড়ের সৃষ্টি হয়। ওই ভিড়ের মধ্যে অনেকে হেলিকপ্টার ও আয়োজকদের পেছনে রেখে সেলফি তুলতে থাকেন। এতে হেফাজতের আমিরকে নামাতে কষ্ট হওয়ায় লাঠি হাতে তেড়ে আসেন মামুনুল। তিনি এসময় ইসলাম চর্চা বাদ দিয়ে বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া চর্চা ও সেগুলোতে সেলফি পোস্ট করার সমালোচনা করতে থাকেন এবং হাতের লাঠি ঘুরিয়ে সবাইকে পেছনে হটতে বাধ্য করেন।




error: কপি রাইট আইনে সর্বস্বত সংক্ষিত